Home বানিয়াচং ইউরোপিয়ান গবেষক সম্মাননা পেলেন বানিয়াচংয়ে কৃতি সন্তান মিরাতুল মুকিত

ইউরোপিয়ান গবেষক সম্মাননা পেলেন বানিয়াচংয়ে কৃতি সন্তান মিরাতুল মুকিত

0
শেয়ার করুনঃ
 রায়হান উদ্দিন সুমন :   পারকিনসন্স রোগের গবেষণায় অনবদ্য অবদান রাখার জন্য ইউরোপিয়ান ইনভেস্টিগেটর সম্মাননা পেয়েছেন বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত বানিয়াচংয়ের কৃতি সমত্মান ড. মিরাতুল মুকিত খান। যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব ডান্ডিতে গবেষক হিসেবে মুকিত কর্মরত আছেন। মুকিত বানিয়াচংয়ের যাত্রাপাশা মহল্লাহর ঐতিহ্যবাহী খান পরিবারের সন্তান। তার বাবার নাম ডা. আব্দুল মুকিত খান। তিনি বিশিষ্ট সমাজসেবক,রোটারিয়ান ও হবিগঞ্জ রম্নপালি ম্যানশনের স্বত্ত্বাধিকারী আলহাজ্ব রেজাউল মোহিত খান ও বিশিষ্ট ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব এনামুল মোহিত খানের চাচাতো ভাই। 
 বানিয়াচংয়ের কৃতি সন্তান ডা.মিরাতুল মুকিত খান
প্রতিবছরই ইউরোপিয়ান মলিকিউলার বায়োলজি অর্গানাইজেশন ইয়ং ইনভেস্টিগেটর (ইএমবিও ওয়াইআইপি) শীর্ষক এ সম্মাননায় ইউরোপ,ইসরাইল,তুরস্ক ও সিঙ্গাপুরের গবেষকদের মধ্যে সবচেয়ে মেধাবীজনকে এ সম্মাননায় ভূষিত করা হয়। এসব দেশের মধ্যে এবার ইউরোপের সেরা গবেষক হিসেবে ড.মিরাতুল মুকিতকে নির্বাচন করেন জুড়ি বোর্ড। দেয়া হয় ইউরোপিয়ান গবেষক সম্মাননা। সম্মাননার পাশাপাশি ভবিষ্যতে আরো ভালো গবেষক হয়ে ওঠার জন্য একাডেমিক,ব্যবহারিক ও অর্থনৈতিক সুযোগ সুবিধা প্রদান করা হয়। এমআরসি প্রোটিন ফসফরাইলেশন এ্যান্ড ইউবিকিটিলেশন ইউনিট প্রকল্পের ওয়েলকাম ট্রাস্ট ক্লিনিক্যাল গবেষক ছিলেন ডা. মুকিত।
 এটি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব লাইফ সায়েন্সের একটি অংশ। তার গবেষণায় পারকিনসন্স রোগের কারণ আরও ভালভাবে বুঝতে সহয়তা করবে। নাইনওয়েলস হসপিটালের স্নায়ুবিদ পরামর্শক ও মুকিত। তিনি সেখানে মূলত:অঙ্গ অকেজো হয়ে যাওয়া রোগীদের চিকিৎসা করেন। এই সম্মাননার বিষয়ে ডা.মিরাতুল মুকিত বলেন,আমি ইএমবিএ ওয়াইআইপি প্রোগ্রামে সংযুক্ত হতে পেরে খুব আনন্দিতবোধ করছি। এখানে ইউরোপের সেরা গবেষকদের সঙ্গে মিথস্ক্রিয়ার সুযোগ মিলবে যা আমাদের গবেষণার প্রচেষ্টাকে ধারালো করে তুলবে।
 মুকিত আগেও ইউরোপিয় গবেষক দলের সঙ্গে কাজ করেছেন। ২০০৪ সালে পারিকিনসন্স রোগের জন্য যে পিংকওয়ান জিনের মিউটেশন (পরিব্যক্তি) দায়ী তা আবিষ্কারকারী দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। মুকিত ইউনিভার্সিটি অব ডান্ডিতে ২০০৮ সাল থেকে এই জিনের ওপর গবেষণা করে আসছেন। তিনি দেখিয়েছেন পিংকওয়ান জিনটির বিচ্যুতি কিভাবে পারকিনসন্স রোগের সৃষ্টি করে। তার এই কাজ পারকিনসন্সের বিষয়ে আরও একটি গুরম্নত্বপূর্ণ ধারণা দিয়েছে বলে মনে করেন ইনভেস্টিগেটর বোর্ড।
শেয়ার করুনঃ

মন্তব্য করুন

Load More In বানিয়াচং